Home Uncategorized বিজেপি ক্ষমতায় এলে রাজ্যে জাতীয় নাগরিক পঞ্জি আপডেট করার জন্য নতুন প্রক্রিয়া...

বিজেপি ক্ষমতায় এলে রাজ্যে জাতীয় নাগরিক পঞ্জি আপডেট করার জন্য নতুন প্রক্রিয়া চালু করা হবে: হেমন্ত বিশ্ব শর্মা

শুক্রবার বোডোল্যান্ড টেরিটোরিয়াল কাউন্সিলের উদালগুড়ি জেলায় নির্বাচনী-ভিত্তিক জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে আসামের অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা বলেছেন, ২০২১ সালের রাজ্য নির্বাচনের পরে বিজেপি ক্ষমতায় এলে এবং তারপর সুপ্রিমকোর্টের সবুজ সংকেত মিললে আসামে জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি) আপডেট করার জন্য নতুন প্রক্রিয়া চালু করা হবে।

তিনি বলেন “এনআরসি পর্যবেক্ষণকারী সুপ্রিম কোর্ট যদি আমাদের অনুমতি দেয় তবে আমরা আরও একটি ত্রুটিমুক্ত এনআরসি তালিকা তৈরি করার জন্য চেষ্টা করব। আমরা ইতিমধ্যে এনআরসি-র মধ্যে থাকা নামগুলির পুনরায় যাচাইয়ের জন্য শীর্ষ আদালতের অনুমতি চেয়েছি।সন্দেহজনক নাগরিকত্বের লোকদের নিরস্ত করার জন্য বিজেপি নতুনভাবে এনআরসি শুরু করতে প্রতিজ্ঞ।”

তার এই বক্তব্য যে মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোওয়ালের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সাথে বৈঠকে ৩১ আগস্ট ২০১৯-এ প্রকাশিত সম্পূর্ণ এনআরসি খসড়াটির ১০-২০ % নাম পুনরায় যাচাইয়ের দাবি করেছেন।তাছাড়া লোয়ার অসমে নাগরিক পঞ্জিতে নথিভুক্ত হওয়া ২০ শতাংশ মানুষ এবং অন্যান্য জেলার ক্ষেত্রে ১০ শতাংশ মানুষের নামের পুনর্বিবেচনা করার আর্জি জানানো হয়েছে শীর্ষ আদালতে।

তাছাড়া হিমন্ত বিশ্ব শর্মা এদিন ‘ভুল’ এনআরসির জন্যে দায়ী করেছেন রাজ্য সমন্বয়কারী প্রতীক হাজেলাকে।এব্যাপারে তার বক্তব্য “সুপ্রিম কোর্ট এনআরসির কাজ পর্যবেক্ষণ করেছিল। কিন্তু প্রতীক হাজেলা এই কাজটিকে ভুল ভাবে করেছেন। চোরকে কার্যত পুলিশ বানানো হয়েছিল। তিনি মৌলিকভাবে ভুল এনআরসি প্রস্তুত করেছিলেন। নির্বাচনের পর সুপ্রিম কোর্ট অনুমতি দিলে নতুনভাবে এনআরসির কাজ শুরু হবে। আমরা ইতিমধ্যেই নথিভুক্ত বেশ কিছু নাম পুনরায় যাচাইয়ের অনুমতি চাইছি শীর্ষ আদালতের কাছে।”

উল্লেখ্য যে ২০২১ সালেই অসমে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে বিানসভা নির্বাচন। এবং বর্তমানে অসমের রাজনীতিতে সব থেকে বড় ইস্যু হল নাগরিকপঞ্জি। এই প্রেক্ষিতেই বিরোধীদের অভিযোগ দমন করতে মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা বৃহস্পতিবার সংবাদমাধ্যমকে জানান যে সুযোগ পেলে বিজেপি আরও পাঁচ বছরের মধ্যে “মৌলিকভাবে ভুল” এনআরসি সংশোধন করে “আধুনিক মুঘলদের” পরাজিত করার জন্য যথেষ্ট পদক্ষেপ নেবে।