Home Uncategorized বাইক থেকে যৌন নিগ্রহ : শিকার হল শিলচর অম্বিকাপট্টির বাসিন্দা এক তরুণী!...

বাইক থেকে যৌন নিগ্রহ : শিকার হল শিলচর অম্বিকাপট্টির বাসিন্দা এক তরুণী! আমি শুধু সমাজের ভয়ে চুপ করে বসে থাকব না : আক্রান্তা

Illustration by : Sweety nath

মহিলাদের বিরুদ্ধে একের পর এক অসামাজিক ঘটনা ঘটেই চলছে শিলচরে।উল্লেখযোগ্য যে লকডাউনের সময় থেকে শিলচরে মহিলাদের বিরুদ্ধে অপরাধ বৃদ্ধি পেয়েছে।ইতিমধ্যে শিলচরে কিছু অসামাজিক মানসিকতার যুবকদের দলের সৃষ্টি হয়েছে যারা করোনা স্বাস্থ্যবিধির সুযোগ অজুহাতে নিয়ে মাক্সের নিচে চেহারা লুকিয়ে পথচলতি মহিলাদের বিরুদ্ধে যৌন অত্যাচার চালায়। তারা মূলত বাইকে চেপে পথচলা মহিলাদের পেছনে ধাওয়া করে এবং রাস্তা একটু ফাঁকা থাকলেই তারা ওই পথচলতি একা মহিলা বা তরুণীর গায়ের কাছে এসে চলন্ত বাইক থেকেই যৌন নিগ্রহ করে বাইকের গতি বাড়িয়ে পালিয়ে যায়।ইতিমধ্যেই এই ধরনের এক অভিযোগে দুই আরোপি যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবুও দমন হয়নি এই ধরনের ঘটনা।এইবার এই ধরনের এক অসামাজিক তত্বের ঘৃণিত মানসিকতার শিকার হল শিলচর অম্বিকাপট্টির বাসিন্দা এক তরুণী।

উল্লেখ্য যে অম্বিকাপট্টি সারদা লেনের বাসিন্দা এক যুবতী শনিবার দুপুর ২.৩০ নাগাদ তাঁর বাড়িতে আসা আত্মীয়দের সঙ্গে সারদা লেনের বাইরে অম্বিকাপট্টি প্রধান সড়ক পর্যন্ত গিয়ে বাড়ি ফিরছিল ঠিক তখনই বাইক নিয়ে এক যুবক দ্রুত গতিতে সারদা লেনের ভিতরে ঢুকে এবং কিছু দুরত্ব অতিক্রম করার পর বাইক থামিয়ে যুবতীর দিকে তাকায় তারপর সে বাইক ঘুরিয়ে খুব দ্রুত গতিতে যুবতীর দিকে ছুটে আসে এবং তার গায়ের কাছে এসে বাইক থামিয়ে যুবতীর গোপন অঙ্গে স্পর্শ করে দ্রুত গতিতে সারদা লেনের বাহিরে পালিয়ে যায়।তারপর যুবতী কোনরকম নিজেকে সামলে বাড়ি পৌঁছয়।কিছুক্ষণ পরে যুবতী আবার ঘটনাস্থলে ফিরে এসে। কিন্তু ততক্ষণে সে পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়।

সম্পূর্ণ ঘটনাটি যুবতী তার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করে লিখেছেন ” এই প্রথমবারের মতো আমি এই ধরনের হেনস্থার শিকার হয়েছি , এবং আমি নিশ্চিত যে বেশিরভাগ মহিলারাই তাদের জীবনের এক পর্যায়ে এই ধরনের হেনস্থার মুখোমুখি হয়েছেন। আমরা অনেকেই লোকে কী বলবে তার ভয়ে চুপ করে থাকি। তবে এখন এই অত্যাচারের বিরুদ্ধে আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে।আমি একজন প্রাপ্তবয়স্ক, স্বাধীন মহিলা এবং আমি কিছুতেই কোন অশিক্ষিত অসামাজিক তত্বকে অনুপযুক্তভাবে আমার শরীরে স্পর্শ করতে দেব না।যার ফলে আমার শারীরিক ক্ষতি হয়।আমি শুধু ভয়ের কারণে চুপ করে বসে থাকব না।আমি আমার নিজের গলিতে, আমার নিজের শহরে এধরনের হেনস্থা সহ্য করব না। আমি মনে করি যে শিলচর মহিলাদের জন্য কীভাবে অনিরাপদ হয়ে উঠেছে তার বিষয়ে অন্যকে সচেতন করা আমার নৈতিক কর্তব্য। এটি যে কারও সাথে, যে কোনও সময় ঘটতে পারে।আমরা আমাদের নিজস্ব গলিতে, যেখানে আমরা বড় হয়েছি সেখানেও নিরাপদ নই।”তাছাড়া মামলায় একটি এজাহার দায়ের করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আক্রান্তা।